জাতীয়

একসঙ্গে খোঁড়া হলো ৮টি কবর

একসঙ্গে খোঁড়া হলো- কবরস্থানে আটজনের জন্য সারি ধরে আটটি কবর খোঁড়া হয়েছে। জয়পুরহাট কেন্দ্রীয় কবরস্থানে খোঁড়া হয় এসব কবর। শহরের আরামনগর এলাকার মানুষ এর আগে কখনো একসঙ্গে এত কবর খোঁড়া দেখেননি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানাজা শেষে আটজনের মরদেহ জয়পুরহাট কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজায় শত শত লোক অংশগ্রহণ করেন।

এর আগে বুধবার রাতে জয়পুরহাট শহরে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে ছড়িয়ে পড়া আগুনে পুড়ে এক পরিবারের ওই আট সদস্যের সবাই মারা যান।

১০ ঘণ্টারও কম সময়ের ব্যবধানে একে একে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মুরগি ব্যবসায়ী আবদুল মোমিন (৩৮), তার স্ত্রী পরী বানু (৩০), ২ বছরের শিশু আবদুর নূর, দুই যমজ মেয়ে হাসি ও খুশি (১২), বড় মেয়ে বৃষ্টি (১৪), বাবা দুলাল হোসেন (৭১) এবং মা মোমেনা বেগম (৬১)।

ঘটনাস্থলে মোমিন, বৃষ্টি ও মোমেনা বেগমের মৃত্যু হলেও বাকিরা ঢাকায় আনার পথে মারা যান। প্রথমে গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় জয়পুরহাট জেলা হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল পাঁচজনকে। অবস্থা বেগতিক দেখে বৃহস্পতিবার সকালে তাদের ঢাকায় পাঠানো হলে পথেই একে একে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন সবাই।

জয়পুরহাট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এবং পুলিশ জানায়, বুধবার রাত ৯টার দিকে পৌর এলাকার জয়পুরহাট শহীদ জিয়া ডিগ্রি কলেজের অদূরে আরামনগর এলাকার একটি বাড়িতে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রতিবেশীরা হঠাৎ দেখতে পায় বাড়িটিতে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। পরে তারা এগিয়ে এলেও শেষ রক্ষা হয়নি।

প্রতিবেশীরা জানান, রাতের খাবার খেয়ে আবদুল মোমিনের বাসার সবাই ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। হঠাৎ টিন শেডের ওই বাড়িতে আগুন দেখতে পেয়ে তারা এগিয়ে আসেন। খুব দ্রুতই আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

পরিবারের সদস্যরা বাড়ির বের হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন। আবদুল মোমিন তার অগ্নিদগ্ধ ছেলে-মেয়েদের কোনো মতে ঘরে বাইরে বের করে দিতে পারলেও নিজে বের হতে পারেননি।

তিনি ঘরের ভেতরেই পুড়ে কয়লা হয়ে যান। এছাড়া ঘরের ভেতরেই মোমেনের সঙ্গে তার মা ও বড় মেয়ে মারা যান। তাদের শরীর এমনভাবে পুড়ে গেছে যে তাদের চেনার উপায় নেই। প্রতিবেশীরা বাকিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

নীলফামারীর ডোমারের এ পরিবারটি দীর্ঘদিন ধরে সবাইকে নিয়ে জয়পুরহাট শহরের আরামনগর এলাকায় বসবাস করছিলেন। তিনি ফেরি করে এলাকায় মুরগি বিক্রি করতেন।

প্রাথমিকভাবে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুনের সূত্রপাত বলা হলেও পরে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে আগুন লাগে বলে নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ইন্সপেক্টর সিরাজুল ইসলাম।

ঘটনার পরপরই জয়পুরহাট-২ আসনের এমপি আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জয়পুরহাট পৌর মেয়রসহ শত শত লোক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পৌর মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বলেন, বুধবার রাতে নিজ বাড়িতে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে ছড়িয়ে পড়া আগুনে গুরুতর দগ্ধ পাঁচজনকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার সময় মারা যায়।

তাদের বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নেয়ার আগেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। সন্ধ্যায় জানাজা শেষে তাদের মরদেহ জয়পুরহাট কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। জানাজায় শত শত লোক অংশ নেন।

স্বামীর কথাতেই সব করতে বাধ্য হতো তরুণী

ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন কিন্তু সেই ভালোবাসার মানুষটির জন্যই অবৈধ পথে নামতে বাধ্য হন। ভুক্তভোগী কলেজপড়ুয়া তরুণী জানান, সুন্দরী তরুণীদের দিয়ে ফেসবুকে ভয়ঙ্কর ফাঁদ পাতার কথা।

অনুসন্ধানে উঠে এসছে এই চক্রের নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। ঢাকার অদূরে ধামরাইয়ে এই চক্রের সদস্যদের বাস। চক্রে জড়িত করা হয়েছিল এক তরুণীকে। শেষ পর্যন্ত চক্র থেকে বের হয়েছেন এই তরুণী।

তবে, অপকর্ম থেমে নেই চক্রটির। তিনি বলেন, মূলত অল্প সময়ে বিপুল অর্থের মালিক হওয়ার জন্যই বিভিন্ন নামে ফেসবুকে আইডি খুলে এই চক্র। আইডিতে নিজের স্ত্রীর ছবি ব্যবহার করে ছদ্মনাম দেয়। চক্রের মূল হোতা ওই তরুণীর স্বামী তৌহিদুল ইসলাম আকাশ।

স্বামীর কথায় বাধ্য হয়েই এই অপকর্মে লিপ্ত হন তিনি। তার ফোনে কল দিতো অচেনা পুরুষরা। কথা বলতো। দীর্ঘসময় কথা বলা ছাড়াও তারা ইমো, ভাইবারে ওই তরুণীকে দেখতে চাইতো। তরুণী ক্যামেরার সামনে যেতে সম্মত না হলে মারধর করা হতো।

বাধ্য হয়েই স্বামীর কথায় ক্যামেরার সামনে বসতে হতো। ওপাশে থাকা পুরুষ লোকটির নানা কথার উত্তর দিতে হতো। অভিনয় করে হাসতে হতো। আকর্ষণীয় একটা ভাব প্রকাশ করে ক্যামেরার সামনে বসতেন তিনি। শুরুতে কথা বলেই আয় করতেন।

তরুণী বলেন, প্রবাসীরা কথা বলার জন্য টাকা পাঠাতো। এক ঘণ্টা কথা বললে ১০০০ টাকা পাঠাতো। কথা বলার আগেই টাকা পাঠাতো। নিশ্চিত হওয়ার জন্য আগে ফোনে কল দিয়ে হাই-হ্যালো করতো। তারপর প্রবাসীদের প্রত্যাশা বেড়ে যেতো।

ভিডিও কলে তরুণীকে দেখতে চাইতো তারা। তখন আরও রেট বাড়িয়ে দেয়া হতো। কিন্তু মূল কাহিনী ঘটতো সরাসরি। ফেসবুকের মাধ্যমে চ্যাট করে, ফোনে কথা বলে নিশ্চিত হওয়ার পর সরাসরি ফূর্তি করতে আগ্রহীদের ডাকা হতো ধামরাইয়ের নির্জন স্থানে।

উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে পুরুষ ব্যক্তি আসতো ঠিকানা অনুসারে। তাকে রিসিভ করতেন ওই তরুণী। এজন্য তাকে নানাভাবে সাজতে হতো। কখনো থ্রি-পিস, টু-পিস, কখনো জিন্সের প্যান্ট, টি-শার্ট বা গেঞ্জি পরতে হতো। নির্ধারিত স্থান থেকে রিসিভ করে পুরুষ ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়া হতো নির্দিষ্ট স্থানে।

সেখানে আগে থেকেই প্রস্তুত রাখা হতো চক্রের কয়েকজনকে। দেশীয় অস্ত্র, ক্যামেরা হাতে নিয়ে অপেক্ষা করতো তারা। স্বামী আকাশের কথানুসারে নেয়া হতো নির্জন ঘরে। নদীর ওপাড়ে একটি খামার বাড়িতে। ঘরে ঢোকা মাত্রই ঘটতো মূল ঘটনা।

আকাশ ও তার সঙ্গীরা ওই ঘরে ঢুকে যুবককে আটক করতো। প্রথমে মোবাইল ফোন, মানিব্যাগ কেড়ে নিতো। মারধর করতো। তারা এটিএম কার্ড চাইতো। তা পেলে জেনে নিতো পিন নম্বর। এছাড়া বিভিন্ন বিকাশ নম্বরে টাকা আদায় করতো। এভাবে এক-একজনের কাছ থেকে ৩০ থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করে চক্রটি।

তরুণী জানান, এই অপকর্মে কোনোভাবেই জড়িত হতে চাননি তিনি। এ নিয়ে আকাশ ও তার মধ্যে প্রায়ই কলহ হতো। কিন্তু পালিয়ে বিয়ে করেছেন। সংসার চলছিল না কিছুতেই। না খেয়েও থাকতে হয়েছে তাদের।

তবু এভাবে ব্ল্যাকমেইল করতে রাজি হননি। রাজি না হলে তাকে মারধর করা হয়। বাধ্য হয়েই আকাশের কথামতো কাজ করে যেতে হতো। ক্রমেই আকাশের অত্যাচার বাড়তে থাকে।

শেষ পর্যন্ত অন্য পুরুষের শয্যাসঙ্গী হতেও প্রস্তাব দেয়া হয়। এতে ক্ষুব্ধ হন তরুণী। তখনই আকাশ ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। এ নিয়ে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে মারধর করা হয় তাকে।

শেষ পর্যন্ত আইনের আশ্রয় নিয়েছেন নির্যাতিতা। বিষয়টি তদন্ত করছে গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে পলাতক রয়েছে আকাশসহ এই চক্রের সদস্যরা।

সিটিটিসি’র সাইবার ইউনিটের উপ-কমিশনার মো. আলীমুজ্জামান বলেন, সাইবার ক্রাইমের বেশিরভাগ অভিযোগই ব্যক্তিগত বিষয়। বিশেষ করে প্রেম-ভালোবাসা থেকে ব্ল্যাকমেইল কেন্দ্রিক। এ রকম অভিযোগ পেলে সাইবার ক্রাইম দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

আপনার মতামত