আন্তর্জাতিক

‘কৃষ্ণ-রাধার প্রেম’! মামীকে বিয়ে করতে ভাগ্নে যা করল…

কৃষ্ণ-রাধার প্রেম- মামার বাড়ি বেড়াতে এসে সমবয়সী মামীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল ভাগ্নে। ‘প্রেমে পাগল’ ভাগ্নে এরপরই মামীকে বিয়ে করে সংসার পাতার পরিকল্পনা করে। আর সেজন্যই মামীকে নিয়ে ভিনরাজ্যে পালিয়ে যায় সে। শেষে ৪ মাস পর উত্তরপ্রদেশ থেকে ধরা পড়ল অভিযুক্ত ভাগ্নে। উদ্ধার করা হল মামীকেও।

পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথির কুমিরদা গ্রামের বাসিন্দা মৌসুমী বেরা। স্বামীর সঙ্গে সুখেই সংসার চলছিল গৃহবধূ মৌসুমীর। কিন্তু সুখের সংসারে হঠাত্ই ‘ঝড়’ ওঠে। কুমিরদা গ্রামে মামার বাড়িতে বেড়াতে আসে অভিযুক্ত ভাগ্নে সোনু চৌহান।

প্রায় ২-৩ মাস মামার বাড়িতে থাকে সে। অভিযোগ, সেই সময়ই সমবয়সী মামীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে ভাগ্নে সোনুর। তারপরই মামীকে নিয়ে পালিয়ে গিয়ে বিয়ের পরিকল্পনা করে সে। মাস চারেক আগে মামীকে নিয়ে উত্তরপ্রদেশে পালিয়ে যায় সোনু। সেখানেই দুজনে বিয়ে করে সংসার পাতার চেষ্টা করছিল যুগল।

এদিকে ভাগ্নে সোনু তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পরই মারিশদা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মৌসুমীর স্বামী। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই শুরু হয় অনুসন্ধান।

অবশেষে ৪ মাস পর উত্তরপ্রদেশ পুলিসের সহযোগিতায় যোগীরাজ্যের বেগপাঠ এলাকা থেকে মামী মৌসুমী বেরা ও ভাগ্নে সোনু চৌহানকে গ্রেফতার করে মারিশদা থানার পুলিস। গ্রেফতারির পর মামী-ভাগ্নে দুজনকেই ফিরিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে কাঁথিতে।

ভাগ্নের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে মুখ খুলতে রাজি হয়নি মামী মৌসুমী। যদিও ভাগ্নে সোনু চৌহান পুলিসি জিজ্ঞাসাবাদের মুখে জানিয়েছে, মামীকে পছন্দ করত সে। তাই বিয়ের পরিকল্পনা করে।

তার দাবি, সে কোনও অন্যায় করেনি। এমনকি নিজের কৃতকর্মের সাফাই দিতে পুলিসের কাছে রাধা-কৃষ্ণের প্রেমলীলারও উদাহরণ টানে সোনু। বলে, “ভগবান কৃষ্ণও তো রাধার প্রেমে মজেছিল, তাহলে অন্যায় কোথায়?”

আপনার মতামত