আন্তর্জাতিক

কেন নওয়াজ শরিফের এ হঠাৎ মুক্তি?

কেন নওয়াজ শরিফের – দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের আকস্মিক কারামুক্তির পেছনে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের রিয়াদ সফরের সম্পর্ক রয়েছে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন।

ইমরান খান অনেকটা লোকচক্ষুর অন্তরালে মঙ্গলবার সৌদি আরব সফরে যান এবং বুধবার সকালে পাকিস্তানের আদালত নওয়াজ শরীফের মুক্তির প্রক্রিয়া সহজ করে রায় দেয়। বুধবার বিকেলে মুক্তি পান সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ, তার মেয়ে মারিয়াম নওয়াজ এবং জামাতা অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন মুহাম্মাদ সফদার।

রহস্যজনক কারণে সৌদি আরবের গণমাধ্যম ইমরান খানের রিয়াদ সফরের খবর ফলাও করে প্রচার করেনি। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মূলত সৌদি আরবের কাছ থেকে আর্থিক সহযোগিতা আদায়ের লক্ষ্যে সৌদি আরব সফরে যান। তিনি মঙ্গলবার মদীনা মুনাওয়ারা সফর করেন এবং বুধবার সকালে জেদ্দায় সৌদি রাজা সালমান ও যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের সঙ্গে আলাদা আলাদা বৈঠক করেন।

সৌদি গণমাধ্যমে এসব বৈঠকের খবর প্রচারিত হলেও আলোচনার বিষয়বস্তু প্রকাশ করা হয়নি। তবে বলা হয়েছে, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদারের উপায় এবং আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যু নিয়ে তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।

নওয়াজ শরীফ (ডানে), তার মেয়ে মারিয়াম নওয়াজ (মাঝখানে) এবং জামাতা অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন মুহাম্মাদ সফদার

বুধবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকালে ইমরান যখন সৌদি রাজার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তখন পাকিস্তানের সর্বোচ্চ আদালত নওয়াজ শরীফের আটকাদেশ স্থগিত করে জামিনে তার মুক্তির রায় দেয়। এর আগে ১৯৯৯ সালে জেনারেল পারভেজ মুশাররফ পাকিস্তানে সামরিক অভ্যুত্থান করলে সৌদি আরবের হস্তক্ষেপে কারাগারে নিক্ষিপ্ত হওয়ার পরিবর্তে রিয়াদে আশ্রয় পেয়েছিলে নতৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ।

পাকিস্তানকে চলমান অর্থনৈতিক সংকট থেকে মুক্তি দিতে এই মুহূর্তে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন ইমরান খান সরকারের। কোনো কোনো সূত্র আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল- আইএমএফের কাছ থেকে অর্থনৈতিক প্যাকেজ গ্রহণের সম্ভাবনার কথা বললেও পাক অর্থমন্ত্রী আসাদ উমর বলেছেন, চীন ও সৌদি আরবের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা গ্রহণের চেষ্টা করছে ইসলামাবাদ

অস্ত্র হাতে তুলে নিলেন পুতিন

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবার নিজের হাতে অস্ত্র তুলে নিয়েছেন। কালাশনিকভ নামের নতুন একটি স্নাইপার রাইফেল হাতে নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই লক্ষ্যভেদ করে দেখিয়ে দিলেন তিনি বন্দুক চালানোয় কতটা পারদর্শী। মঙ্গলবার মস্কোতে কালাশনিকভ কনসার্ন নামের একটি অস্ত্র প্রস্ততকারী কোম্পানীতে গিয়ে আরও একবার যোগ্যতার প্রমাণ দিলেন এই রুশ প্রেসিডেন্ট।

রাশিয়ার সরকারি টেলিভিশনে দেখানো হয়েছে যে, পুতিন চশমা পড়ে এবং হেডফোন কানে দিয়ে গুলি ছুড়ছেন। মস্কোর অদূরে কালাশনিকভ কোম্পানীর বন্দুক চালানোর স্পটে পজিশন নিয়ে তিনি সেখান থেকে গুলি ছোড়েন।

রাশিয়া ২৪ টেলিভিশন চ্যানেল তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, লক্ষ্য প্রকৃতই যেরকম থাকে সেরকম দূরত্ব থেকেই তিনি গুলি ছোড়েন। পুতিন যখন স্নাইপারের ট্রিগার চাপেন তখন তাকে পুরোদস্তুর একজন পেশাদার এবং বন্দুক চালানোয় পারদর্শী হিসেবে দেখা গেছে।

এসময় তার নিশ্বাস এবং হৃদস্পন্দন একটুও এদিক ওদিক হয়েছে বলে মনে হয় না। পুতিন পাঁচবার গুলি ছোড়েন এবং প্রত্যেকবারেই তিনি অর্ধেকেরও কম সময়ে সফল লক্ষ্যে পৌঁছাতে সক্ষম হন।

ভ্লাদিমির পুতিন মস্কোতে দেশটির প্যাট্রিয়ট নামে একটি সামরিক থিম পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে এক সফরে গিয়েছিলেন। সেখানেই অস্ত্র চালিয়ে দেখালেন তিনি। কালাশনিকভ মূলত বিশ্বব্যাপী পরিচিত একে-৪৭ রাইফেলের প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান।

আপনার মতামত