খেলাধুলা

ক্রিস গেইলের মা আর নেই

ক্রিস গেইলের মা – না ফেরার দেশে চলে গেছেন ক্রিস গেইলের মা হেজেল। বুধবার হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা ক্রিকেটার ক্রিস গেইলের মা। তিনি স্বামী ডুডলিসহ রেখে গেছেন সাত সন্তান ভ্যানক্লিভ, লিন্ডন, মিশেল, মাইকেল, অ্যান্ড্রু, ক্রিস্টোফার হেনরি গেইল এবং ওয়েনিকে।

ক্রিস গেইলের মায়ের মৃত্যুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড (সিডব্লিউআই) সভাপতি ডেভ ক্যামেরন শোক প্রকাশ করে বলেছেন, ক্রিস গেইলের মায়ের মৃত্যুতে আমরাও শোকাহত। গেইলের পরিবারের সদস্যদের আমরা সমবেদনা জানাচ্ছি।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের এই মহাতারকার মায়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে জ্যামাইকা ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (জেসিএ)।

‘আমি একা কেন, শেখ হাসিনা কোথায়?’

নাইকো দুর্নীতি মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানি শেষে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ১টার সময় এ মামলার শুনানি শেষ হলে তাকে আবারও নাজিমউদ্দিন রোডের সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয়।

এর আগে, বেলা ১১টা ২০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি প্রধানকে হুইল চেয়ারে করে কেবিন ব্লক থেকে নামিয়ে কালো রঙের একটি গাড়িতে করে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

১১টা ৩৫ মিনিটের দিকে কারাগারে ঢোকে খালেদাকে বহনকারী গাড়িটি। বেলা পৌনে ১২টার দিকে কারাগারে স্থাপিত আদালতে তোলা হয় খালেদা জিয়াকে।

এ সময় কারাগারে স্থাপিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ মাহমুদুল কবীরের আদালতে নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানিতে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আদালতে শুধু আমি একা কেন? এ মামলাতে তো বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও আসামি ছিলেন,তাহলে তিনি কোথায়?’

তিনি আদালতকে আরো বলেন, নাইকো দুর্নীতিতে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীও জড়িত ছিলেন। উনিও আসামি ছিলেন। আমি শুধু ধারাবাহিকতা রক্ষায় চুক্তিতে স্বাক্ষর করি। তাহলে শুধু আমার একার বিচার হচ্ছে কেনো? বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিচার কেনো হচ্ছে না? উনাকে কেন আদালতে নেওয়া হচ্ছে না।

খালেদা জিয়ার প্রশ্নের জবাবে আদালত বলেন, তিনি এখন এই মামলার পার্ট না। তাই উনি আসেননি।

পরে মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল সাংবাদিকদের বলেন,উচ্চতর আদালত এ মামলা থেকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে অব্যাহতি দিয়েছেন। তাই তিনি এখন আর এ মামলার পার্ট না। কিন্তু সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াও মামলাটি খারিজের চেষ্টা করেন । কিন্তু মামলার মেরিট থাকায় হাইকোর্ট তা বিচারিক আদালতে পাঠান।

পরে দুই পক্ষের শুনানি শেষে আগামী ১৪ নভেম্বর এ মামলার পরবর্তী তারিখ ঠিক করেন আদালত।

Source : Amader Somoy

যে কারণে ঐক্যফ্রন্টে কাদের সিদ্দিকী

তিন ভাইয়ের মনোনয়নের নিশ্চয়তার কষাকষিতে সুবিধা করতে না পেরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়েছেন বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। তিনি চেয়েছিলেন তার ভাই আব্দুল লতিফ ও মুরাদ সিদ্দিকীর দলীয় মনোনয়ন নিশ্চিত করলেই তিনি আওয়ামী লীগের সঙ্গে থাকবেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একাধিক নীতিনির্ধারকের সাথে যোগাযোগও করেন। ক্ষমতাসীন দলের হাইকমান্ডের সাথেও সাক্ষাতের চেষ্টা করেন। কিন্তু তার সেই চেষ্টা-প্রত্যাশা পূরণ হয়নি।

কাদের সিদ্দিকীকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, তাদের তিন ভাইয়ের যে কোনো একজনকে মনোনয়ন নিশ্চিত করা হবে, তিনজনকে নয়। ক্ষমতাসীন একাধিক সিনিয়র নেতার সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মনোনয়ন নিশ্চিতের বিষয়টি নাকচ হওয়ার পর কাদের সিদ্দিকী ক্ষুদ্ধ হয়ে সরকারবিরোধী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে সমালোচনা করাসহ ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশেও তাকে গালিগালাজ করেন।

সংলাপ সংশ্লিষ্ট ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একাধিক নীতিনির্ধারকদের মতে, নবগঠিত রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেওয়ার আগে আওয়ামী লীগের সাড়া পাওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দীকী।

এ খবরে কয়েকদিন ধরেই সরব বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। আলোচনায় আছে কয়েক দফা সময় নিয়েও সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি কাদের সিদ্দিকী। তবে তিনি যে জোটেই থাকেন না কেন গণতন্ত্র অক্ষুন্ন রাখতে আপস করবেন না বলে জানান।

সূত্র জানায়, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর থেকেই রাজনৈতিক অঙ্গনে জোর গুঞ্জন ছিল এই জোটে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের যোগ দেয়া। এ বিষয়ে গত ৩১ অক্টোবর নিজের অবস্থান জানানোর জন্য কাদের সিদ্দিকী ৩ নভেম্বর পর্যন্ত সময় নেন। এতেও তিনি তার সিদ্ধান্ত জানাতে পারেননি। সিদ্ধান্ত নিতে আরো সময় লাগবে বলে জানানো হয়।

অবশেষে ৫ নভেম্বর ঐক্যফ্রন্টে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেয় কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ।

জানা গেছে, এসময়ের মধ্যে কাদের সিদ্দিকী তার চাহিদানুযায়ী সফলতার আশায় ছিলেন। কিন্তু তার সেই আশা-প্রত্যাশা ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক জরিপে টেকেনি।

ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন জানা গেছে, টাঙ্গাইলের যে তিনটি আসনে তারা তিনভাই মনোনয়ন নিশ্চিত করতে চেয়েছেন মাঠের অবস্থা তাদের পক্ষেও নেই। তাই সম্ভব নয় বলেই তাকে জানিয়ে দেয়া হয়েছিল।

এতেই তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডসহ দলের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ ও কঠোর সমালোচনা করেন। তবে এ কথা শতভাগ সত্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জোটে যোগদানের দর কষাকষি করতেই কালক্ষেপণ করেছেন কাদের সিদ্দিকী।

আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করেন, রাজনীতিতে ধৈর্য্যহারা হয়ে এর আগেও দলছুট হয়ে পড়েছেন কাদের সিদ্দিকী। একইভাবে এবারও আদর্শহীন জোটে যোগ দেন তিনি।

‘শুক্রবারই গঠন হতে পার নির্বাচনকালীন সরকার’

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানিয়েছেন, শুক্রবারই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন হতে পারে। নতুন কেউ মন্ত্রিত্ব পাবে না। টেকনোক্র্যাটদের পদত্যাগপত্র এখনও গ্রহণ হয়নি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

এ সময় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগপত্র গ্রহণের পর তাদের (৪ জনের) পদত্যাগ কার্যকর হবে।

আপনার মতামত