সংবাদ | বিনোদন | সারাক্ষন

এবার খালেদা জিয়ার জেল নিয়ে যা বললেন তসলিমা নাসরিন

খালেদা জিয়ার জেল – বাংলাদেশের ইতিহাসে রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের মধ্যে এইচ এম এরশাদের পর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির দায় মাথায় নিয়ে কারাগারে যেতে হলো৷ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বকশীবাজার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ আদালতের বিচারক ড. মো: আখতারুজ্জামান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন।

দুর্নীতির মামলার এ রায় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কিছু প্রতিক্রিয়া তুলে ধরা হলো-

ডয়চে ভেলে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- ,‘যাক বিএনপি তাহলে পুরাপুরি মরে নাই! তবে এটাই ওদের সবচাইতে বড় ব্যর্থতা৷ দেশের স্বার্থের চাইতে ম্যাডাম ইস্যুতেই ওরা বেশি সোচ্চার৷আজকের আগে এই সরকারের আমলে একবারই বিএনপি ইস্যুভিত্তিক মাঠ গরম করেছিল, যখন খালেদা জিয়াকে ক্যান্টনমেন্টের বাড়ি ছাড়তে বলা হয়েছিল৷’

ডয়চে ভেলের ওই প্রতিবেদনটিতে দেখা যায়, রুহুল মাহফুজ জয় দাবি করেছেন যাতে হলমার্ক, বাংলাদেশ ব্যাংক, সোনালি ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, ফার্মার্স ব্যাংক, বেসিক ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির বিচারও শিগগির হয়৷

ডয়চে ভেলের প্রতিবেদনটিতে তুলে ধরা হয়েছে- ফেসবুক পাতায় রোমান রহমান লিখেছেন, তিনি এমনই সাজা প্রত্যাশা করেছিলেন৷ তিনি লিখেছেন,‘দুর্নীতি মামলায় তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর ও দলটির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অপর পাঁচ আসামিদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়ে আদালত যে নজির সৃষ্টি করেছে, ভবিষ্যতে দুর্নীতিবাজদের, হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যাংক লুটপাটকারীদের এমন কঠোর সাজা হবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা৷’

তারেক সুমন অবশ্য লিখেছেন, ইতিহাসের পুনরাবৃত্তির কথা৷ তিনি লিখেছেন,‘১৯৯১ সালে এরশাদ গেলেন জেলে৷ ২০১৮ সালে খালেদা জিয়া গেলেন জেলে৷ তারপর কার সিরিয়াল আসছে? এই কালো রাজনীতির গ্রাস থেকে আমরা সাধারণ জনগণ মুক্তি চাই৷’

এদিকে, লন্ডনে বসবাসকারী বাংলাদেশি লেখিকা তসলিমা নাসরিন- জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জেল সম্পকে তার টুইটার অ্যাকাউন্টে ইংরেজিতে টুইট বার্তা দিয়েছেন।

তিনি লিখেছেন,‘খালেদা জেলে তার নেতারা কর্মসূচি দিচ্ছেন৷ শুক্রবার বিক্ষোভ, শনিবার প্রতিবাদ সমাবেশ৷ এসব নেতা দিয়ে বিএনপির আগামী ১০০ বছরেও কিছু হবে না৷ বিএনপি ঈদের পর আন্দলোনের ডাক দিতে পারে, পাঁচ বছর পর যে কোনো ঈদের পর৷’

রেজওয়ান শুভ লিখেছেন নেতাকর্মীদের ভোল পাল্টানোর কথা৷ তিনি লিখেছেন, ‘পাঁচ বছর আগেও দেখেছি অবস্থা বেগতিক দেখে কিছু পরিচিত মুখ ছাত্রদল থেকে ভোল পাল্টে ছাত্রলীগ হয়েছিল, তাদের কেউ কেউ আজ বুকে মুজিবের ছবি লাগিয়ে বড় মাপের পাতি নেতাও হয়ে গেছে৷ আমার বিশ্বাস, বছর কয়েক পর যদি শেখ হাসিনাকেও কোনো কারণে জেলে ভরা হয়, তাহলে তারা আবারও ভোল পাল্টে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ বলে গলা ফাটাবে৷ এটাই বাংলাদেশ৷’

Comments
লোড হচ্ছে...