সংবাদ | বিনোদন | সারাক্ষন

ঢাকায় ট্রাম্পের নামে ক্যাফে!

ঢাকায় ট্রাম্পের নামে ক্যাফে! – ঢাকায় ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামে ক্যাফে খুলেছেন এক উদ্যোক্তা। তবে এজন্য আগে কর্তৃপক্ষকে তার আশ্বস্ত করতে হয়েছে যে, কফি শপটির সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্টের আদতে কোনো সংশ্লিষ্টতাই নেই। খবর আইএএনএস।

এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন না হলেও ক্যাফেটি চালু রয়েছে প্রায় দুই মাস ধরে। তবে কফি শপটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের প্রস্তুতি নেয়ার কথা জানিয়েছেন ‘ট্রাম্প ক্যাফের’ স্বত্বাধিকারী সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘এখনো কিছু সংস্কারকাজ বাকি রয়েছে। এগুলো শেষ হওয়ামাত্রই বেশ বড় করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সে সময় মার্কিন রাষ্ট্রদূতকেও এখানে আমন্ত্রণ জানাব আমি।’

নিজেকে ট্রাম্পভক্ত বলে দাবি করেন সাইফুল ইসলাম। কফি শপটির সাজসজ্জাতেও এর ছাপ দেখা যায়। ক্যাফেটিতে ঢুকেই প্রথমে চোখে পড়বে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কার্ডবোর্ডে নির্মিত বড় এক প্রতিকৃতি।

সাইফুল ইসলাম জানান, ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামে তিনি নিজের কফি শপের নামকরণের উত্সাহ পেয়েছেন টেক্সাসের বেলভিল ক্যাফের ঘটনা থেকে। কফি শপটির মালিক সে সময় ট্রাম্পের প্রচারাভিযান চলাকালে কফি শপটির নাম বদলে রিপাবলিকান প্রার্থীর নামে নামকরণ করেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের নামে কফি শপের নামকরণ করতে গিয়ে বেশ বিড়ম্বনায় পড়েছেন সাইফুল ইসলাম। কফি শপটি খোলার আগে কর্তৃপক্ষের কাছে প্রমাণ দিতে হয়েছে, তিনি নিজেই এ কফি শপটির মালিক। তিনি বলেন, ‘আগে আমাকে কর্তৃপক্ষের লোকজনের কাছে প্রমাণ দিতে হয়েছে যে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বাংলাদেশ নিয়ে সরাসরি কোনো চিন্তাভাবনা নেই। শেষ পর্যন্ত আমি কফি শপের লাইসেন্স পাই ১৭ জানুয়ারি, ডোনাল্ড ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণের তিনদিন আগে।’

ট্রাম্প ক্যাফের মেনুতে কয়েকটি পানীয়ের নাম একটু বিচিত্র। এর মধ্যে একটির নাম ট্রাম্প ককটেল। আরেকটি আছে ট্রাম্প মকটেল। সাইফুল ইসলামের দাবি, এসব পানীয় প্রস্তুত করার প্রণালিটি তিনি এক চাচার কাছ থেকে শিখেছেন, যিনি নিউইয়র্কে বেশ কিছুদিন ট্রাম্পের মালিকানাধীন রেস্টুরেন্টে কাজ করেছেন।

পানীয়ের পাশাপাশি ক্ষুধার্ত ক্রেতাদের জন্য ট্রাম্প স্যান্ডউইচ, ট্রাম্প ক্যাশিউ সালাদ ও ট্রাম্প চপসির ব্যবস্থাও রেখেছেন সাইফুল ইসলাম। তার বিশ্বাস, এসব খাবারের মধ্য দিয়ে তিনি গ্রাহকদের বোঝাতে সক্ষম হবেন যে, ডোনাল্ড ট্রাম্প মোটেও একজন খারাপ লোক বা মুসলিমবিদ্বেষী নন।

তিনি বলেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা যেটা আরোপ করা হয়েছে, সেটা তো শুধু ঝামেলাপূর্ণ দেশগুলোর জন্য। আমি মনে করি না এতে বাংলাদেশের ওপর কোনো প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা আছে এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজেও প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকে কোনো ধরনের মুসলিমবিদ্বেষী পদক্ষেপ নেননি।’

একই রকম পোস্ট
Comments
লোড হচ্ছে...