চিত্র বিচিত্র

সততা স্টোর: দোকানে থাকেন না কোনও বিক্রেতা, নেই নজরদারি ক্যামেরাও!

দোকানে থাকেন না কোনও – দোকানে গিয়ে দেখলেন, দোকানি নেই, নেই নজরদারি ক্যামেরাও। জিনিসপত্রের গায়ে দাম লেখা রয়েছে। সেই দাম অনুযায়ী খাতা-কলম বা অন্য কোনো শিক্ষাসামগ্রী নিয়ে নির্ধারিত বাক্সে রাখতে হবে টাকা। এভাবে কোনো দরদাম ছাড়াই শিক্ষার্থীরা কেনাকাটা করতে পারবে ‘সততা স্টোর’ থেকে।

ওই দোকান থেকে শিক্ষার্থীরা সহজেই নিজেদের প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে পারবে, তেমনি রাখতে পারবে সততার স্বাক্ষর। দোকানের একটি পণ্য অতিরিক্ত নিলে বা টাকা না দিলে দেখার কেউ নেই। সবাই সততার পরীক্ষায় পাস করতে পারে কি না, তাই দেখার পালা।

এমনই এক সততার পরীক্ষায় আপনাকে পড়তে হতে পারে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার গাংনগর দ্বি-মুখী দাখিল মাদ্রাসার একটি দোকানে। সেখানে খাতাপত্র, কলম, পেনসিল সহ নানা বাহারী পণ্য সাজিয়ে রাখা। কিন্তু জিনিসপত্র নিয়ে টাকাটাও ঠিকঠাক দিলেন কি না, দেখার কেউ নেই। দোকানের নাম সততা স্টোর। এমন দোকানও হয় ? এই দোকান তো দুই দিনে লাটে ওঠার কথা !

রবিবার (১২ আগস্ট) গাংনগর দ্বি-মুখী দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাংবাদিক আতিক রহমান মুঠোফোনে সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, সততার মহৎ উদাহরণ সততা স্টোর। দোকানে আছে, বিক্রেতা নেই।

ক্রেতারা নিজের পছন্দের জিনিসটি ক্রয় করে, নির্দিষ্ট বাক্সে মূল্য পরিশোধ করে চলে যান। সব পণ্যের গায়েই দাম লেখা আছে। এখন পর্যন্ত কেউ টাকা না দিয়ে চলে গেছে, এমন ঘটনা একটাও ঘটেনি। দোকানে ভাংতি টাকাও রাখা আছে। পণ্য ক্রয় করে ক্রেতারা নিজেই টাকা ভাংতি করে নেন।

জানা গেছে, সততা স্টোর নামের এই দোকানটি বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) মাদ্রাসা চত্বরে শুভ উদ্বোধন করেন শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবির। সাংবাদিক আতিক রহমানের উদ্যোগে চালু হওয়া দোকানটি চলছে বেশ। শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দের পণ্য নিয়ে টাকা রেখে যান নির্দিষ্ট বক্সে।

শিক্ষার্থীরা জানালেন, টাকা না দিয়ে তারা কখনো কোনো জিনিস নিয়ে যায় না। সততা স্টোর ছাড়াও সভাপতির (সাংবাদিক আতিক রহমান) ব্যক্তিগত উদ্যোগে চালু করা হয়েছে দুস্থ কল্যান গ্যালারী। যে গ্যালারী সামর্থ্যবান শিক্ষার্থীরা স্ব-ইচ্ছায় জামা-কাপড় রাখবে। গরীব যেসব শিক্ষার্থীরা আছে, তারা যার যেটা পছন্দ ইচ্ছামতো নিয়ে যেতে পারবে। এতে কোন গরীব ছাত্র-ছাত্রী লজ্জায় পড়বে না।

মাদ্রাসা সুপার আব্দুল ওয়াহাব বলেন, শিক্ষার্থীদের সততায় উদ্বুদ্ধ করতেই ব্যতিক্রমী এই দোকান সভাপতি (সাংবাদিক আতিক রহমান) সাহেব চালু করেছেন। তার এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন সবাই।

এ প্রসঙ্গে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর কবির বলেন, সততা স্টোরের মতো এরকম ছোটখাট উদ্যোগ শিক্ষার্থীদের মধ্যে সত্যবাদী হতে সহায়তা করবে। এছাড়াও দুস্থ কল্যান গ্যালারী একটি চমকপ্রদ উদ্যোগ। এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

-সময়ের কন্ঠসর