বিনোদন

কালো থেকে ফর্সা হওয়া নায়িকারা

ফর্সা হওয়া নায়িকারা – মানুষের গায়ের রঙ যেমনই হোক না কেন রক্তের রঙ কিন্তু সবারই এক। বর্ণবাদ বিরোধী এমন তত্ত্ব অন্তত সিনেমার সঙ্গে যায় না। অর্থাৎ চলচ্চিত্রে বরাবরই কালোরা উপেক্ষিত। আর নায়িকা হলে তো কথাই নেই। বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া হলিউডে গিয়ে বর্ণ বৈষম্যের শিকার হওয়ার কথা প্রকাশ্যে এনেছেন। নিজেকে পর্দায় গ্রহণযোগ্য করার জন্য প্লাস্টিক সার্জারিও করিয়েছেন। শুধু প্রিয়াঙ্কা নন, বলিউডের বেশ কয়েকজন নায়িকা রয়েছেন যাঁরা পর্দায় নিজেদের গ্রহণযোগ্য করে তুলতে ত্বকের রঙ পরিবর্তন করে ফর্সা হয়েছেন। দেখা যাক কারা রয়েছেন সেই তালিকায়-

কাজল

ত্বকে মেলানিন সার্জারি করিয়ে বেশ সমালোচিত হয়েছিলেন কাজল। কিন্তু এক সময় শ্যামা সুন্দরী হিসেবে বলিউডে তাঁর কদর ছিল। ‘বাজিগর’ ছবির কথাই ধরা যাক, সেখানে কিন্তু নিজের প্রকৃত লুকেই ধরা দিয়েছিলেন কাজল। কিন্তু ক্রমশ এই রঙের বদল হতে থাকে। গণমাধ্যমের দাবি, মেলানিন সার্জারি করিয়ে স্থায়ীভাবে ত্বকের রঙে বদল করিয়েছেন কাজল। যদিও রঙ বদলের রহস্য কখনোই প্রকাশ করেন নি কাজল।

প্রিয়াংকা চোপড়া

‘মিস ওয়ার্ল্ড’ খেতাব জেতা প্রিয়াংকা আর বর্তমান প্রিয়াংকার মধ্যে ব্যাবধান অনেক। জানা যায়, একের পর এক সার্জারি করিয়ে গায়ের রং ফর্সা করিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। শুধু রং নয়, সার্জারি করিয়ে চেহারাতেও অনেক বদল এনেছেন এই তারকা।

শিল্পা শেঠি

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের শিল্পা এবং স্বামী রাজ কুন্দ্রার ঘরণী শিল্পার মধ্যে বিস্তর পার্থক্য দেখা যায়। গুঞ্জন আছে, সার্জারি করিয়ে তামাটে থেকে ফর্সা রঙের হয়েছেন এই বলি ডিভা। তবে শিল্পার দাবি, সার্জারি নয় এটা নিছকই নাকি ‘প্রেগন্যান্সি গ্লো।’

বিপাসা বসু

গায়ের শ্যামলা রঙ নিয়ে ২০০৫ এবং ২০০৭ সালে এশিয়ার ‘সেক্সিয়েস্ট ওম্যান’-এর খেতাব জিতেছিলেন বিপাসা। নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করতে, নিজের গায়ের রঙে নিয়ে তিনি গর্বিত বলেও জানিয়েছিলেন। কিন্তু তারপর? সিলিকন সার্জারি থেকে ‘স্কিন লাইটনিং ট্রিটমেন্ট’— ফর্সা এবং আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে কোনও কিছুই বাদ দেননি বিপাশা।

শ্রীদেবী

আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে কয়েকবার প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছিলেন শ্রীদেবী। ক্যারিয়ারের শুরুতে তামিল ছবিতে তাঁকে যে লুকে দেখা গিয়েছিল বলিউডে তার অনেকটাই পরিবর্তীত হয়েছে।

রেখা

রেখা নিজেই জানিয়েছিলেন, অভিনয় জগতে পা রাখার পর নিজের গায়ের রং নিয়ে অনেক মন্তব্য এবং সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল তাঁকে। সার্জারির কথা প্রকাশ্যে না আনলেও, পরবর্তীকালে কৃষ্ণ বর্ণের রেখাকে ফর্সা হতে দেখা যায়।

হেমা মালিনী

ক্যারিয়ারের শুরুতে গায়ের রঙ কালোই ছিল বলিউডের ‘ড্রিম গার্ল’ হেমা মালিনীর। জানা যায়, গায়ের রঙ কালো থাকায় চলচ্চিত্রে বেশ উপেক্ষিত হয়েছিলেন হেমা। এরপর রঙ বদলাতে তিনি সার্জারির আশ্রয় নেন।