আন্তর্জাতিক

বাংলাদেশ থেকে পেশাজীবী নেবে পোল্যান্ড

বাংলাদেশ থেকে পেশাজীবী – পোল্যান্ড বাংলাদেশ থেকে পেশাজীবী নিয়োগের সুযোগ দিয়েছে। এই বাজারে পেশাজীবী নিয়োগের জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছিল।

সম্প্রতি পোল্যান্ড কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল থেকে কয়েক হাজার পেশাজীবী নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে। ইতোমধ্যে ভারতে অবস্থিত পোল্যান্ডের দূতাবাসে আবেদন শুরু হয়েছে। অনলাইনেও আবেদনপত্র জমা নিচ্ছে পোল্যান্ড কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ ভারত ও নেপালের প্রায় ২৫ হাজার আবেদনপত্র জমা পড়েছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বাংলাদেশ-পোল্যান্ডের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়া ষষ্ঠ দেশ পোল্যান্ড। ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি দু’দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়।

বাংলাদেশে পোল্যান্ডের দূতাবাস নেই। তবে পোল্যান্ডের ওয়ারশে বাংলাদেশের দূতাবাস রয়েছে। পোল্যান্ড সাধারণত ১ বছরের মাল্টিপল এন্ট্রি ভিসা দেয়। ভিসার মেয়াদ শেষ হলে দীর্ঘমেয়াদে ভিসার মেয়াদ বাড়ানো যায়। ভিসার মেয়াদ বাড়িয়ে দেশটিতে ২০-৩০ বছর পর্যন্ত অবস্থান করতে পারবেন।

শিক্ষাগত ও কাজের অভিজ্ঞতা অনুসারে অগ্রাধিকারভুক্ত চাকরি পাওয়া যায়। দেশটিতে বিজনেস ম্যানেজমেন্ট, মার্কেটিং অফিসার, অ্যাকাউন্টেন্ট, ইলেক্ট্রিক ইঞ্জিনিয়ার, সিভিল ইঞ্জিনিয়ার, ইলেক্ট্রনিক মেকানিক, আইটি, ফ্যাশন ডিজাইন, মেডিক্যাল, মেডিসিন স্পেশালিস্ট, হোটেল, রেস্টুরেন্ট সুপারভাইজার পদে চাকরির সুযোগ রয়েছে। সাধারণ কর্মীদের কাজের সুযোগ খুব একটা নেই।

পোল্যান্ডের সংবাদ মাধ্যমগুলো প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, পোল্যান্ড সরকার নতুনভাবে বিদেশ থেকে পেশাজীবী নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইউরোপের দেশটিতে যাওয়ার জন্য অনেকেই আবেদন করেছেন। ভিসা চেয়ে আবেদন করেছেন ২৫ হাজার মানুষ। তবে তাদের ভিসার বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

ভারতের নয়াদিল্লীতে পোল্যান্ডের দূতাবাসে এত বেশি আবেদন জমা পড়েছে যে কর্মকর্তারা তা গ্রহণ করতে হিমশিম খাচ্ছে। পোল্যান্ডে ভিসার জন্য অনেকে আট মাস আগে আবেদন করেছেন। কিন্তু এখনও তারা ভিসার জন্য রেজিস্ট্রার হতে পারেননি। লোকবল সঙ্কটের কারণে তারা মাত্র ৩ হাজার ৫ শ’ ভিসা ইস্যু করতে পেরেছে।

ভিসা আবেদনকারীর সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ায় দূতাবাসের আইটি সিস্টেম মাঝে মধ্যে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। পোল্যান্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউক্রেন থেকে শতকরা ২১ ভাগ লোক নিয়োগ করবে। চলতি বছর আগস্টে পোল্যান্ডে বেকারত্বের হার ছিল শতকরা ৫ দশমিক ৮ ভাগ। জুলাইতে ছিল ৫ দশমিক ৯ ভাগ। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরিসংখ্যান ভিত্তিক এজেন্সি ইউরো স্ট্যাটের হিসাব মতে, পোল্যান্ডে জুলাইতে বেকারত্বের হার ছিল শতকরা ৩ দশমিক ৮ ভাগ। এই পরিস্থিতি পোল্যান্ড সরকার দেশের বাইরে থেকে পেশাজীবী নিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় নতুন বাজার সৃষ্টির জন্য নিউজিল্যান্ড, রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, পোল্যান্ড, কানাডা, সুদান, গ্রিস, লাইবেরিয়া, তানজানিয়া, এসতোনিয়া, আজারবাইজান, নাইজিরিয়া, বোতসোয়ানা, সিয়েরালিয়ন, তাইওয়ান, স্পেন, দক্ষিণ আফ্রিকা, চেক রিপাবলিক, বেলজিয়াম, জার্মানি, জাপান, দক্ষিণ আফ্রিকাসহ পূর্ব ইউরোপের কয়েকটি দেশে শ্রমবাজার সৃষ্টি জন্য প্রতিনিধি দল সফর করে।

জানা গেছে, নতুন বাজারে জনশক্তি রফতানি হচ্ছে। বিশ্বের ১৬২ দেশে জনশক্তির বাজার রয়েছে। কর্মীদের বিদেশি ভাষায় পারদর্শিতা, প্রশিক্ষণের মান উন্নয়নের জন্য আন্তর্জাতিক এ্যাক্রোডিটেশন প্রতিষ্ঠার সঙ্গে এ্যাফিলিয়েশন করা, প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে আধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজন এবং নিয়মিতভাবে প্রশিক্ষকদের দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া, আন্তর্জাতিক শ্রম বাজারের চাহিদার আলোকে বিদ্যমান কোর্স কারিকুলামকে নিয়মিত আপগ্রেড করা, বেসরকারি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানগুলো পরিচালিত প্রশিক্ষণের মান গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে রাখার জন্য নিয়মিতভাবে মনিটরিং ব্যবস্থা নিয়েছে মন্ত্রণালয়।