বিনোদন

সে দিনের অনাথ অর্পিতাই আজ সালমান খানের আদরের বোন

সে দিনের অনাথ অর্পিতাই- সালমান খানের আদরের বোন অর্পিতা খান কিছুদিন আগেই খবরের কাগজের শিরোনামে এসেছিলেন মা হওয়ার সুবাদে। অর্পিতার শিশুপুত্র আহিলকে কোলে নিয়ে সালমানের আদরের ছবি সেই সময় ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল।

সালমানের মতো ভাই, ব্যবসায়ী আয়ুষ শর্মার মতো নিষ্ঠাবান স্বামী, আর আহিলের মতো ফুটফুটে একটি সন্তান রয়েছে যার, তিনি নিশ্চয়ই পৃথিবীর সবচেয়ে সৌভাগ্যবতীদের মধ্যে একজন, এমনটাই মনে করা স্বাভাবিক।

কিন্তু অনেকেই যেটা জানেন না, সেটা হলো, ছোটবেলা থেকে অজস্র উত্থানপতনের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হয়েছে অর্পিতা খানের জীবন এবং আদপে তার জীবনকাহিনি কোনো সিনেমার চিত্রনাট্যের চেয়ে কম কিছু নয়।

অর্পিতা আসলে খান পরিবারের সন্তান নন। অর্পিতার পিতৃপরিচয় অজানা। তার মা ছিলেন এক ফুটপাথবাসিনী। অর্পিতা যখন খুব ছোট তখনই মারা যান অর্পিতার মা। মায়ের মৃতদেহের পাশে বসে কাঁদছিল ছোট্ট অর্পিতা।

সেই সময় গাড়ি করে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন অভিনেত্রী হেলেন। তিনিই শিশুটিকে বাড়ি নিয়ে আসেন। পরে সালমানের বাবা চিত্রনাট্যকার সেলিম খান বাচ্চাটিকে দত্তক নেন এবং অনাথ শিশুটিকে পিতৃপরিচয় প্রদান করেন।

অবশ্য এই কাহিনির সত্যতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন কেউ কেউ। তবে অর্পিতা যে সেলিমের দত্তক কন্যা, সেই বিষয়ে কোনো সংশয় নেই।

কিন্তু পিতৃপরিচয় যাই হোক না কেন, অর্পিতাকে আপন করে নিতে সময় লাগেনি খান পরিবারের। তিনি বাড়ির ছোট মেয়েটির মতোই আদরে বড় হতে থাকেন। পরবর্তীকালে লন্ডন কলেজ অফ ফ্যাশন থেকে মার্কেটিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট পাশ করেন অর্পিতা।

একটি ন‌ামজাদা আর্কিটেকচার ও ইন্টেরিয়ার ডিজাইন ফার্মে তিনি এখন কাজ করছেন। তবে নিজস্ব ফ্যাশন ব্র্যান্ড খোলার ইচ্ছে রয়েছে অর্পিতার। সেই সঙ্গে রয়েছে ফিল্ম প্রোডাকশনে নিজের ভাগ্য পরীক্ষার ইচ্ছাও।

কৈশোরে অর্পিতা অর্জুন কাপূরের সঙ্গে একটি প্রণয়সম্পর্কে জড়়িয়ে পড়েন। অর্জুন তখন মাত্র ১৮ বছরের। অর্জুন সেই সময় বিরাট মোটা ছিলেন। তার ওজন ছিল ১৪০ কেজি।

শোনা যায়, সালমান খানের অনুপ্রেরণাতেই নাকি ওজন কমানোর ব্যাপারে উদ্যোগী হন অর্জুন। দু’জনের ভালবাসা খুবই গভীর ছিল। কিন্তু অর্জুন-অর্পিতার সম্পর্ক বছর দু’য়েকের বেশি টেকেনি।

২০১৩ সালে আয়ুষের সঙ্গে আলাপ হয় অর্পিতার। আলাপ অচিরেই গড়ায় প্রেমে। ২০১৫ সালে দু’জনে বাঁধা পড়েন বিবাহবন্ধনে। অর্পিতার চিরকালের স্বপ্ন ছিল, কোনো এক প্রাসাদে বিয়ের অনুষ্ঠান হবে তার।

সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য হায়দরাবাদের ফলকনামা প্যালেস বুক করেন সালমান তার আদরের বোনের বিয়ে উপলক্ষে। সেখানে এক এলাহি অনুষ্ঠানে অর্পিতা আর আয়ুষ বাঁধা পড়েন বিবাহবন্ধনে।

আর কিছুদিন আগে আয়ুষ-অর্পিতার পরিবারে আসে ছোট্ট আহিল। এখন আর অর্পিতার জীবনে যেন অভাব নেই কোনো। সবদিক থেকে পূর্ণতায় ভরে উঠেছেন অর্পিতা। একদিন ছিলেন ফুটপাথের অনাথ এক শিশু। আর আজ এক আধুনিক রাজরানির মতো জীবন তার। জীবনের নাটকীয় পরিবর্তন বোধহয় একেই বলে।

শাহরুখের সম্পত্তি দেখে অবাক আমির খান!

শাহরুখ খান ও আমির খানের মধ্যে বছরের পর বছর ধরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলেছে । তাদের ভক্তরাও কে কাকে ছাড়িয়ে? এই অংক করেছেন অনেক। এখন আর সেরকম নেই। সম্প্রতি করণ জোহরেরে এক পার্টিতে একসঙ্গে দেখা গেছে তাদের। এরই মধ্যে শাহরুখ খানের বাড়িও গিয়েছিলেন আমির। ঘুরে এসে শাহরুখের সম্পত্তির বর্ণনা দিয়েছেন তিনি।

শাহরুখ খানের সম্পত্তি দেখে চমকে গেছেন আমির খান। সংবাদমাধ্যমের কাছে আমির বলেন, ‘আমি শাহরুখ খানকে একজন তারকা হিসেবে দেখি। আমি তারকা নই। শাহরুখ সুপুরুষ, চার্মিং ও সুন্দর পোশাক পরেন। আমি তার বাড়ি গিয়েছিলাম। তার ওয়্যারড্রোব দেখলাম। আমার গোটা বাড়িটার সমান তার ওয়্যারড্রোব।’

আমির-সালমান-শাহরুখের মধ্যে প্রতিযোগীতা নিয়ে অনেক আলোচনা সমালোচনা হয়ে আসছে বলিউড পাড়ায়। কিন্তু আমির জানান, তিনি কখনও শাহরুখ ও সালমানকে নিজের প্রতিযোগী ভাবেন না।

এমনকী, রাকেশ শর্মার বায়োপিকে অভিনয় করার জন্য শাহরুখকে নেওয়ার পরামর্শ আমিরই দিয়েছিলেন। এই বিষয়ে আমির বলেন, ‘আমি স্ক্রিপ্টটা (রাকেশ শর্মার বায়োপিক) শুনেছিলাম। আমার ভাল লেগেছিল। এটা সত্যি যে আমি তার পরে শাহরুখকে ফোন করে বলেছিলাম তার স্ক্রিপ্টটা দেখা উচিত। শাহরুখেরও ভাল লেগেছে জেনে আমি খুশি হয়েছি।’

ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য জলিকে ২৫ লাখ টাকা অনুদান দিলেন প্রধানমন্ত্রী

ফুসফুসের ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য ‘বাংলা চলচ্চিত্রের মা’ খ্যাত অভিনেত্রী রেহানা জলিকে অনুদান হিসেবে ২৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র প্রদান করেছন প্রধানমন্ত্রী।

অর্থের অভাবে রেহানা জলি ক্যান্সারের চিকিৎসা করাতে পারছেন না। তাই গণমাধ্যম মারফত সম্প্রতি তিনি চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে সহায়তাও প্রার্থনা করেন। গণমাধ্যমের এই খবর প্রধানমন্ত্রীর নজরে আসলে তিনি রেহানার প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। অভিনেত্রীর চিকিৎসা খরচ বাবদ প্রধানমন্ত্রী তাকে ডেকে ২৫ লাখ টাকা অনুদান দেন।

রেহানা জলি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মতো মানুষের তুলনা হয় না। তিনি অসহায়দের সহায়। এটা জানতাম বলেই আমার চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে সহায়তা চেয়েছিলাম। আজ সকাল সাড়ে আটটায় তিনি আমাকে গণভবনে ডেকে পাঠান। সেখানেই আমার হাতে ২৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দেন।

এমন সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সারা জীবন চির ঋণী থাকবেন বলেও জানান রেহানা জলি। তিনি বলেন, আমার জীবনে সবচেয়ে বড় উপকারটা তিনিই করলেন। কারণ অর্থাভাবে আমার চিকিৎসাইতো বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। এখন আবার প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণে চিকিৎসা শুরু করতে পারবো। সুস্থ হয়ে কাজে ফিরতে পারবো।

প্রধানমন্ত্রীর সাথে আর কোনো কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকালে আমাদের ডেকেছিলেন। সেখানে গিয়ে দেখি প্রচুর মানুষের ভিড়। লোকে লোকারণ্য। এতো ব্যস্ততার মধ্যেও তিনি আমাকে সময় দিলেন।

সঞ্চয় পত্র তুলে দিলেন, আমাকে দেখে তিনি শুধু একটি কথায় বলেছেন সেটা হলো, ‘এইরকম হয়ে গেছো তুমি?’। আসলে অসুস্থতার কারণে এমন অবস্থা হয়েছে আমার, যে অনেকদিন পর কেউ দেখলে আমাকে চিনতেই পারেন না।

অসুস্থতার খবর প্রধানমন্ত্রীর কানে পৌঁছে দিতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে শিল্পী ঐক্যজোটের দুই নেতা ডিএ তায়েব ও জিএম সৈকত। ২৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র পেয়ে এই দুইজনের কাছে কৃতজ্ঞতা জানান জলি।

এর আগে নিজের সমস্যার কথা তুলে ধরে চ্যানেল আই অনলাইনকে জলি জানিয়ে ছিলেন, আমি এক বছরের বেশি সময় ধরে অসুস্থ হয়ে পড়ে আছি।

প্রথমে আমার ফুসফুসে ইনফেকশন ধরা পড়ে, এরপর ব্যাকবোনের সাত নাম্বার যে হাড্ডিটা আছে ডাক্তাররা জানিয়েছে সেটা গুড়ো হয়ে গেছে। যার ফলে এখন চলাফেরা করাও সমস্যা হয়ে গেছে আমার জন্য। এমনকি হাত পা নাড়াতেও সমস্যা হয়।

ফুসফুসের ক্যানসারটি প্রাথমিক অবস্থায় আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ফুসফুসের ক্যানসারটি প্রথম স্টেজে আছে বলে ডাক্তাররা জানিয়েছে। প্রপার ট্রিটমেন্ট করলে এক বছরের মধ্যে ইনশাল্লাহ্ সুস্থ স্বাভাবিক হওয়া সম্ভব। তবে খুব শিগগির চিকিৎসা নিতে বলেছেন ডাক্তার। নাহলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়ারও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

বিগত এক বছর ধরে অসুস্থ হয়ে বোনের বাসায় পড়ে আছেন রেহানা জলি। জানালেন চিকিৎসা ব্যয়ও এতোদিন ধরে তার বোনরাই বহন করে আসছিলেন। কিন্তু এখন তাদের পক্ষেও আর খরচ করা সম্ভব হচ্ছে না। কারণ ক্যানসারের চিকিৎসা বেশ ব্যয়বহুল একটি ব্যাপার। তাদের সেই সামর্থও নেই।

প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা পাওয়ায় এবার নতুন করে চিকিৎসা করবেন বলেও জানান রেহানা জলি।

আপনার মতামত