চিত্র বিচিত্র

২০০ পাউন্ড ওজন কমিয়েছেন, তাও প্রেম হচ্ছে না!

২০০ পাউন্ড ওজন- এক বছরের মধ্যে ২০০ কেজি ওজন কমিয়ে বেশ উত্তেজিত ছিলেন ৪২ বছর বয়সী হানাহ হ্যালিস। কিন্তু এতকিছুর পরও যে প্রেম তার হাতে এসে ধরা দেবে না, সেটা তিনি ভাবতে পারেননি।

ব্যাপকভাবে ওজন কমার ফলে হানার শরীরজুড়ে দাগ রয়ে গেছে। ডেটিং অ্যাপে তার দেওয়া ছবিতে শরীরের এসব দাগ দেখেই নাকি কেউ তার প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে না বলে অাক্ষেপ করেছেন তিনি।

তার শরীরের চামড়া ঠিক করতে তহবিল গঠনের জন্য তিনি যে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম খুলেছেন, সেখানে হানাহ নিজেই লিখেছেন, পোশাক ছাড়া আমাকে খুবই বাজে লাগে দেখতে।’

মাত্র দুই বছর আগেও ইংল্যান্ডের পুলবোরোর বাসিন্দা হানার ওজন ছিল ৪৬২ পাউন্ড। কিন্তু গ্যাস্ট্রিক বাইপাস সার্জারির পর মাত্র ১২ মাসে ২৫২ পাউন্ড ওজন করিয়েছেন তিনি।

২২ বছর আগে তার স্বামী তাকে তালাক দিয়েছিল। তাই তিনি ওজন কমিয়ে নতুন করে একটি প্রেমময় জীবন শুরু করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, তার ওজন যত সহজে কমেছে, প্রেম অত সহজে তার হাতে ধরা দিচ্ছে না।

২০০ পাউন্ড ওজন কমিয়েছেন, তাও প্রেম হচ্ছে না!ওজন কমানোর আগে ও পরে হানাহ।

বাধ্য হয়ে ডেটিং অ্যাপ টিন্ডারে অ্যাকাউন্ট খোলেন হানাহ। সেখানে লন্ডনের এক হ্যান্ডসাম ব্যাচেলরের সঙ্গে তার সঙ্গে পরিচয় হয়। অনলাইনে ১০ দিন চ্যাটিং করার পর হানাহ সিদ্ধান্ত নেয়, ওজন কমার পর তার শরীরে যে দাগ পড়েছে, সেগুলো ছেলেটিকে জানানো, যাতে প্রথমবার দেখলে সে অবাক না হয়।

সে তার বিকিনি পরা কিছু ছবি ছেলেটিকে পাঠায়। ছেলেটি কিছুক্ষণ পরই তার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

ডেটিং অ্যাপে পরিচয় হওয়া অন্যদের সঙ্গেও তিনি একই কাজ করেছেন এবং সবার কাছ থেকেই একই প্রতিক্রিয়া পেয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন হানাহ।

হানাহ এখন তার ঝুলে যাওয়া চামড়া ঠিক করতে একটি তহবিল গঠন করেছেন। চামড়া ঠিক করতে ও শরীর থেকে দাগ দূর করতে তার ৩৩ হাজার ডলার প্রয়োজন। কিন্তু তিনি এখন পর্যন্ত মাত্র ২৫০ ডলাপর তুলতে পেরেছেন।

আপনার মতামত